শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য : রোহিঙ্গা পাসপোর্টও হয় কোটা সংস্কার আন্দোলনে সমর্থন জানালেন জি এম কাদের পাসপোর্টের রোকনের ঘরে আলাদিনের চেরাগ নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য : রোহিঙ্গা পাসপোর্টও হয় রংপুরে আন্দোলনকারীদের ওপর টিয়ারগ্যাস, রাবার বুলেট নিক্ষেপ, আহত ৩০ তালতলীতে ৩২ লিটার চোলাই মদসহ আটক ১ বিশ্ব গণমাধ্যমে কোটা সংস্কার আন্দোলন ইমরানের দল পিটিআইকে নিষিদ্ধ করছে পাকিস্তান সরকার অ্যান্টিভেনম প্রয়োগের পরও ২০% রোগীর মৃত্যু দি মারিয়া, নিজের চোট আর শিরোপা জয়ের রোমাঞ্চ নিয়ে মেসির আবেগঘন পোস্ট ওমানে মসজিদের কাছে গোলাগুলি, নিহত ৪ আমি মারা যেতে পারতাম: ট্রাম্প কানে ব্যান্ডেজ নিয়ে সম্মেলনে ট্রাম্প, পেলেন আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন আমি রাজাকার’ স্লোগানধারীদের শেষ দেখিয়ে ছাড়বে ছাত্রলীগ: সাদ্দাম হোসেন নেপালে দুই বাসের ৫৭ যাত্রী এখনো নিখোঁজ, নদীর পাড়ে অপেক্ষায় স্বজনরা ৪৬ বছর পর খুলল রত্ন ভাণ্ডারের দরজা, কী আছে এতে? ৪৬ বছর পর খুলল রত্ন ভাণ্ডারের দরজা, কী আছে এতে? ছেলের বিদেশযাত্রায় ১০ দিনের জন্য মুক্তি পেলেন খুনের আসামি বাবা স্বামী কালো বলে সন্তানকে ফেলে বাপের বাড়িতে স্ত্রী! পিতৃত্ব অস্বীকার প্রবাসী স্বামীর, গলা কেটে যমজ সন্তানকে খুন
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৬:৫৫ অপরাহ্ন

বউয়ের মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যান কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপলোড সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪

দ্বিতীয় স্ত্রীর করা যৌতুকের মামলায় নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা জাতীয় পার্টির সহসভাপতি মাকসুদ হোসেনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) দুপুরে নারায়ণগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ উম্মে সরাবন তহুরা এ আদেশ দেন।

প্রসঙ্গত, ৮ মে বন্দর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে জয়ী হন মাকসুদ হোসেন। ১১ জুন দায়িত্বগ্রহণের
৯ দিনের মাথায় কারাগারে গেলেন তিনি।

কারাগারে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের পিপি রকিব উদ্দিন আহমেদ।

এর আগে, ২৩ এপ্রিল মাকসুদ হোসেনের বিরুদ্ধে তার স্ত্রী সুলতানা বেগম (৪৩) যৌতুকের
অভিযোগ এনে মামলা করেন। মামলায় তিনি অভিযোগ করেন, ১৯৯৮ সালে মাকসুদ হোসেন তাকে বিয়ে করেন।
তাদের একটি কন্যাসন্তান আছে।

সুলতানা বেগমের দাবি, বিয়ের সময়ে প্রথম স্ত্রীর কথা তিনি গোপন রাখেন। বিষয়টি জানতে পেরে সুলতানা বেগম তাকে বাড়িতে তোলার জন্য চাপ দেন। তবে তার কোন কথায় কর্ণপাত করেননি মাকসুদ।

তিনি আরও অভিযোগ করেন, মাকসুদ হোসেন তার পৈত্রিক প্রায় কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি বিক্রি করার
জন্য চাপ দেন। এতে রাজি না হওয়ায় তাকে বারবার চাপ দেওয়া হয়। এ ঘটনায় ২০২২ সালের ১৩ নভেম্বর একটি
যৌতুকের মামলা করেন তিনি। চলতি বছর ২১ এপ্রিল রাতে মাকসুদ কয়েকজনকে নিয়ে সুলতানার বাড়িতে গিয়ে মামলা তুলতে চাপ দেন। সেই সঙ্গে সম্পত্তি বিক্রি করলে বাড়িতে তুলবেন বলে প্রলোভন দেখান। এ কথায় রাজি না হওয়ায় মেয়ে শ্রাবন্তিসহ সুলতানা বেগমকে হত্যার হুমকি দেন মাকসুদ। এ ঘটনায় আদালতে মামলা করেন সুলতানা বেগম। আজ আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

 


এই বিভাগের আরও খবর