শিরোনাম
পাসপোর্টের রোকনের ঘরে আলাদিনের চেরাগ নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য : রোহিঙ্গা পাসপোর্টও হয় রংপুরে আন্দোলনকারীদের ওপর টিয়ারগ্যাস, রাবার বুলেট নিক্ষেপ, আহত ৩০ তালতলীতে ৩২ লিটার চোলাই মদসহ আটক ১ বিশ্ব গণমাধ্যমে কোটা সংস্কার আন্দোলন ইমরানের দল পিটিআইকে নিষিদ্ধ করছে পাকিস্তান সরকার অ্যান্টিভেনম প্রয়োগের পরও ২০% রোগীর মৃত্যু দি মারিয়া, নিজের চোট আর শিরোপা জয়ের রোমাঞ্চ নিয়ে মেসির আবেগঘন পোস্ট ওমানে মসজিদের কাছে গোলাগুলি, নিহত ৪ আমি মারা যেতে পারতাম: ট্রাম্প কানে ব্যান্ডেজ নিয়ে সম্মেলনে ট্রাম্প, পেলেন আনুষ্ঠানিক মনোনয়ন আমি রাজাকার’ স্লোগানধারীদের শেষ দেখিয়ে ছাড়বে ছাত্রলীগ: সাদ্দাম হোসেন নেপালে দুই বাসের ৫৭ যাত্রী এখনো নিখোঁজ, নদীর পাড়ে অপেক্ষায় স্বজনরা ৪৬ বছর পর খুলল রত্ন ভাণ্ডারের দরজা, কী আছে এতে? ৪৬ বছর পর খুলল রত্ন ভাণ্ডারের দরজা, কী আছে এতে? ছেলের বিদেশযাত্রায় ১০ দিনের জন্য মুক্তি পেলেন খুনের আসামি বাবা স্বামী কালো বলে সন্তানকে ফেলে বাপের বাড়িতে স্ত্রী! পিতৃত্ব অস্বীকার প্রবাসী স্বামীর, গলা কেটে যমজ সন্তানকে খুন নির্বাচনকে সামনে রেখে ট্রাম্পের ফেসবুক-ইনস্টাগ্রাম নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল মেটা রাশিয়ায় বিধ্বস্ত বিমান, আরোহীদের কেউ বেঁচে নেই
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ০৬:১৬ অপরাহ্ন

বয়কটের ডাকে অর্ধেকে নেমেছে তরমুজের দাম, তবুও নেই ক্রেতা!

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপলোড সময় : শুক্রবার, ২৯ মার্চ, ২০২৪

 


রোজার শুরুতেই মৌসুম শুরু হয় তরমুজের। মিষ্টি ও রসালো হওয়ায় ইফতারে চাহিদা বাড়ে এই ফলের। সুযোগ নিয়ে বিক্রেতারা হুহু করে বাড়ায় দাম। পিস হিসাবে বিক্রি না করে কেজি ৮০-১০০ টাকায় বিক্রি করা হয়। সাত থেকে আট কেজির একটি তরমুজের দাম পড়ে ৭০০-৮০০ টাকা। তাই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ‘তরমুজ বয়কটের’ ডাক দেয় সাধারণ মানুষ।

পাশাপাশি বাজারে তরমুজের সরবরাহ বেড়েছে অনেক। সেই সঙ্গে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান এবং বাংলাদেশ এগ্রি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশেনের ‘কৃষকের দামে তরমুজ বিক্রি’র উদ্যোগের কারণে কয়েক দিনের ব্যবধানে অর্ধেকেরও কমে নেমে এসেছে তরমুজের দাম। তারপরও ক্রেতা নেই। ফলে বাজারে বিক্রেতাদের কপালে হাত।

এদিকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঢাকার বাজারে তরমুজের সরবরাহ বাড়তে শুরু করেছে। ফলে দাম আরেক দফা কমেছে। শুক্রবার রাজধানীর কাওরান বাজার, রামপুরা, মালিবাগ বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুব ভালোমানের তরমুজ প্রতিকেজি ৪৫-৫০ টাকা। তবে এই একই তরমুজ ভ্যানে ও ফুটপাতে ৪০ টাকা কেজিদরে বিক্রি করতে দেখা গেছে। এই তরমুজ পাঁচ দিন আগেও ৮০-১০০ টাকা কেজিদরে বিক্রি হয়েছে। আর পিস হিসাবে কেউ চাইলে তার কাছে বিক্রি না করে অনেক বেশি দাম চাওয়া হয়েছে। এছাড়া খুচরা বাজারে ছোট আকারের বা ৪-৫ কেজির তরমুজ পিস হিসাবে ১৫০-১৮০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। যা আগে ৪০০-৫০০ টাকা ছিল।

রামপুরা বাজারে ক্রেতা আরিফ বলেন, বয়কটের সিদ্ধান্তেই তরমুজের দাম কমেছে। আমি ৭ দিন ধরে তরমুজ কিনছি না। এটা আমার প্রতিবাদ। কারণ একটি তরমুজ ৮০০-৯০০ টাকা দিয়ে কিনব, এটা মগের মুল­ুক না। সবাই এভাবে জোটবদ্ধ হয়ে তরমুজ কেনা সাময়িক বন্ধ করতে পেরেছে বলেই দাম কমেছে। আর কয়েকদিন না কিনলে পিস ৩০-৪০ টাকায় নেমে আসবে।

তিনি বলেন, প্রথম রোজায় পরিবারের বায়না রাখতে বাজারে গিয়ে তরমুজের দাম করেছিলাম। বিক্রেতা পণ্যটি কেজিদরে বিক্রি করতে চায়। পিস বিক্রি করবে না। কেজি এক দাম ১০০ টাকা। ৮ কেজির একটি তরমুজের দাম ৮০০ টাকা চাওয়া হয়। এত দাম হওয়ায় না নিয়ে বাড়ি ফিরতে হয়েছে। এখন বিক্রেতারা বিক্রি করতে না পেরে সেই তরমুজ বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছে। না হয় পচে নষ্ট হলে ফেলে দিচ্ছে।

বিক্রেতারা বলেন, তরমুজের সরবরাহ বেড়েছে। তবে ক্রেতা নেই। রোজার শুরুতে ওজন করে কিনতে হতো তাই ওজন করে বিক্রি করেছি। এখন পিস ও ওজন করে কিনি তাই কেজি বা পিস হিসেবে বিক্রি করছি। এছাড়া বাজারে তরমুজের সরবরাহ বেড়েছে। কিন্তু বিক্রি নেই। বিক্রেতারা আরও জানান, আর এক মাসের মতো তরমুজের মৌসুম আছে। রোজার কারণে এখন কিছুটা হলেও বেচাকেনা আছে। ঈদের পর সেটিও থাকবে না।


এই বিভাগের আরও খবর