শিরোনাম
আন্দোলনকারীদের দেশে থাকার অধিকার নেই: জাফর ইকবাল স্ত্রীর দাবি নিয়ে স্বামীর বাড়িতে অনশন আগামীকাল সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা শাবি ছাত্রলীগের কক্ষ থেকে পিস্তল ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়ছে ২৭ শতাংশ, আগস্ট থেকে কার্যকর রাবি প্রশাসনকে সময় বেধে দিলেন আন্দোলনকারীরা রংপুর পার্ক মোড়ের নাম ‌‘শহীদ আবু সাঈদ চত্বর’ দিলেন শিক্ষার্থীরা কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীদের আন্দোলন, ৩ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল শুরু নওগাঁয় কোঠা সংস্কার মিছিল ছাত্রলীগের বাঁধায় পন্ড, উভয় পক্ষের বাহাস জামালপুরে ট্রেন ও সড়ক অবরোধ কফিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার শপথ শিক্ষার্থীদের কোটা সংস্কার : সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী মানিকগঞ্জের গড়পাড়া ইমাম বাড়িতে পবিত্র আশুরার শোক মিছিল মানিকগঞ্জের গড়পাড়া ইমাম বাড়িতে পবিত্র আশুরার শোক মিছিল বিশ্ব গণমাধ্যমে কোটা আন্দোলনে নিহতের খবর পাসপোর্টের রোকনের ঘরে আলাদিনের চেরাগ নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য : রোহিঙ্গা পাসপোর্টও হয় কোটা সংস্কার আন্দোলনে সমর্থন জানালেন জি এম কাদের পাসপোর্টের রোকনের ঘরে আলাদিনের চেরাগ নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য : রোহিঙ্গা পাসপোর্টও হয়
মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন

চাঁদা ওঠে ‘৮০ কোটি টাকা’, ‘নিয়ন্ত্রকেরাই’ রাজনীতিতে প্রভাবশালী

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপলোড সময় : মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০২৪
চাঁদা ওঠে ‘৮০ কোটি টাকা’, ‘নিয়ন্ত্রকেরাই’ রাজনীতিতে প্রভাবশালী

লাখের নয়, হিসাব কোটির। তা–ও এক কোটি বা দুই কোটি নয়, বছরে চাঁদা ওঠে ‘প্রায় ৮০ কোটি’ টাকা। পরিবহনের এই চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণে বগুড়া আওয়ামী লীগ এবং তাদের সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতা–কর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত।

বগুড়ায় পরিবহনে চাঁদাবাজি যাঁরা নিয়ন্ত্রণ করেন, তাঁরাই আবার ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রভাবশালী। চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণের জন্যই তাঁরা আওয়ামী লীগের সহযোগী ও ভাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতা–কর্মীদের নিয়ে নিজস্ব দল গড়েন। দুই পক্ষের মধ্যে মহড়া দেওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে। এমনকি খুনের ঘটনাও ঘটেছে।

বগুড়া আওয়ামী লীগে জেলার পরিবহন খাতে চাঁদাবাজির নিয়ন্ত্রণকেরাই প্রভাবশালী। কোন্দল চাঁদাবাজি ঘিরে।

দেশের উত্তরাঞ্চলের ১১টি জেলা থেকে ঢাকা ও অন্য অঞ্চলে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের কেন্দ্র বগুড়া। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে পরিবহনসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠনের নামে যানবাহন থেকে চাঁদা ওঠানো হয়। বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল, তখন দলটির নেতারা পরিবহন খাত থেকে চাঁদা তুলতেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর এর নিয়ন্ত্রণ চলে আসে দলের নেতাদের হাতে।

পুলিশ ও পরিবহন খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, বগুড়ার ওপর দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ১০ হাজার যানবাহন চলাচল করে। এর মধ্যে বাস তিন হাজার ও ট্রাক সাড়ে তিন হাজার। প্রতিটি বাস–ট্রাক থেকে প্রতিদিন বিভিন্ন সংগঠনের নামে চাঁদা ওঠানো হয় ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা। এই হিসাবে বছরে বড় যানবাহন থেকে চাঁদা ওঠে প্রায় ৬০ কোটি টাকা। এর বাইরে এই জেলায় প্রায় ১০ হাজার তিন চাকার যান্ত্রিক যান চলে। এসব যানবাহন প্রতিটি থেকে প্রতিদিন ৫০ থেকে ৬০ টাকা চাঁদা আদায় করা হয়। এই হিসাবে তিন চাকার যান্ত্রিক যান থেকে চাঁদা ওঠে প্রায় ২০ কোটি টাকা। অর্থাৎ বগুড়ায় শুধু পরিবহনকে কেন্দ্র করেই বিভিন্ন সংগঠনের নামে বছরে চাঁদা ওঠে প্রায় ৮০ কোটি টাকা।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দাবি, শাহ আক্তারুজ্জামানের পক্ষটি তিন বছর ধরে পরিবহনে চাঁদাবাজির মূল নিয়ন্ত্রক হিসেবে রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দাবি, শাহ আক্তারুজ্জামানের পক্ষটি তিন বছর ধরে পরিবহনে চাঁদাবাজির মূল নিয়ন্ত্রক হিসেবে রয়েছে। অন্য পক্ষটির নেতৃত্ব দেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম (মোহন)। তাঁর প্রভাব কমেছে। যদিও এই শাহ আক্তারুজ্জামানের পক্ষে থাকা আমিনুল, মান্নান, মতিন ও শামসুদ্দিনের উত্থান হয়েছিল মঞ্জুরুলের হাত ধরে।

পরিবহনে যে চাঁদাবাজি হয়, সেটির নিয়ন্ত্রণ শ্রমিকদের হাতে নেই। যাঁরা নিয়ন্ত্রণ করছেন, তাঁরা এখন শ্রমিকনেতা থেকে বড় ব্যবসায়ী বনে গেছেন। তাঁরা এখন কোটিপতি। তিনি বলেন, চাঁদাবাজির টাকা শ্রমিকদের কল্যাণেও ব্যয় হয় না। পুরো টাকা ভাগ-বাঁটোয়ারা করেন নিয়ন্ত্রকেরা।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) বগুড়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ফরিদ

চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুবলীগ নেতা আমিনুল ইসলামের সঙ্গে প্রকাশ্যে বিরোধে জড়িয়ে পড়েছিলেন মঞ্জুরুল আলম। তখন পাল্টাপাল্টি হামলা এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিল। পাল্টাপাল্টি মামলাও হয়েছিল।

আমিনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, মঞ্জুরুল আলমের সঙ্গে এখন আর ঝামেলা নেই। গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে দুই পক্ষই এক হয়ে গেছে। তিনি বলেন, পরিবহনে আগে চাঁদাবাজি হতো। এখন আর হয় না। এখন যেটা হয়, তা সমিতির কেন্দ্র থেকে নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। মালিক সংগঠনের নামে ৩০ টাকা এবং শ্রমিক সংগঠনের নামে ৩০ টাকা চাঁদা ওঠানো হয়।

মঞ্জুরুল আলমের ভাষ্যও একই। তিনি বলেন, ২০২১ সালে হওয়া মামলাগুলো আপস হয়ে গেছে। এখন আর কোনো বিরোধ নেই। তবে তিনি এখন আর পরিবহনসংক্রান্ত বিষয়ে সক্রিয় নন। এখন চাঁদা তোলা হয় কি না, সেটিও তিনি বলতে পারবেন না।

অবশ্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সূত্রে জানা গেছে, আগেও সমিতির নামেই চাঁদা ওঠানো হতো। এখনো একইভাবে হয়। মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নামে ওঠানো চাঁদার কোনো সঠিক হিসাব রাখা হয় না। শ্রমিকদের কল্যাণের বদলে তা অনেকাংশে ভাগ–বাঁটোয়ারা হয়। বিষয়টি নিয়ে কেউ মুখ খুলতেও সাহস পান না।

চাঁদা নিয়ে প্রথম আলোর পক্ষ থেকে অনেকের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল। তবে নাম প্রকাশ করে কেউ বক্তব্য দিতে রাজি হননি। পরে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) বগুড়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ফরিদ প্রথম আলোকে বলেন, পরিবহনে যে চাঁদাবাজি হয়, সেটির নিয়ন্ত্রণ শ্রমিকদের হাতে নেই। যাঁরা নিয়ন্ত্রণ করছেন, তাঁরা এখন শ্রমিকনেতা থেকে বড় ব্যবসায়ী বনে গেছেন। তাঁরা এখন কোটিপতি। তিনি বলেন, চাঁদাবাজির টাকা শ্রমিকদের কল্যাণেও ব্যয় হয় না। পুরো টাকা ভাগ-বাঁটোয়ারা করেন নিয়ন্ত্রকেরা।

মতিনকে তখন যুবলীগ থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। যদিও পরিবহন খাতের নিয়ন্ত্রণ হাতছাড়া হয়নি তাঁর। পরে তিনি বগুড়া পৌরসভার কাউন্সিলর হয়েছেন।

রাজনীতিতে আধিপত্য তাঁদের

স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, ২০০৯ সাল পর্যন্ত বগুড়ায় আওয়ামী লীগে একক কর্তৃত্ব ছিল দলের তখনকার জেলা সভাপতি মমতাজউদ্দীনের হাতে। তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে পরিবহন খাতসংশ্লিষ্ট নেতাদের আধিপত্য শুরু হয়। তখন জেলা যুবলীগের সভাপতি ছিলেন মঞ্জুরুল আলম। তিনি কয়েকজনকে নিয়ে পরিবহন খাতে চাঁদার নিয়ন্ত্রণ নেন। ২০১৪ সালে মঞ্জুরুল জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদ পান। এরপর দলে তাঁর ব্যাপক প্রভাব তৈরি হয়। মঞ্জুরুল দলের অভ্যন্তরে মমতাজউদ্দীন বিরোধী একটি শক্তিশালী পক্ষ তৈরি করেন।

বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, মঞ্জুরুল আলম জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদ পাওয়ার পর তাঁর হাত ধরেই দলে পরিবহন নেতাদের আধিপত্য শুরু হয়।

জেলা আওয়ামী লীগের পদধারী একাধিক নেতা প্রথম আলোকে বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রভাবশালী হয়ে উঠেছে দলের জেলা সভাপতি ও বগুড়া-৫ আসনের (শেরপুর-ধুনট) সংসদ সদস্য মজিবর রহমানের পক্ষটি। কারণ, পরিবহনে চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণকারী তাঁরা। যদিও মজিবর প্রথম আলোকে বলেন, চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত কোনো পরিবহন নেতাকে তিনি প্রশ্রয় দেন না।

আগে দেখতাম রাজনীতিবিদেরা জনগণের মধ্যে থাকেন, সঙ্গে থাকেন। সংস্কৃতি অঙ্গনেও তাঁদের পদচারণ ছিল। এখন দেখা যাচ্ছে রাজনীতিতে বিত্তশালী, পেশিশক্তিধারী, চাঁদাবাজির নিয়ন্ত্রক, ভূমিদস্যু, দখলবাজদের দাপট বেশি। ভালো মানুষেরা এখনো আছেন, তবে তাঁরা কোণঠাসা।

সনাক বগুড়ার সাবেক সভাপতি বজলুল করিম বাহার

চাঁদাবাজির নিয়ন্ত্রক থেকে দলে পদ

২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত জেলা যুবলীগের সভাপতি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের এখনকার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম। ওই সময়ে তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগী আমিনুলকে বগুড়া সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এবং মতিন সরকারকে বগুড়া শহর যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদ দেওয়া হয়, যাঁরা পরিবহনে চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণ করতেন।

যুবলীগের একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে  বলেন, ২০১৭ সালে এক ছাত্রীকে মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার ঘটনায় মতিন ও তাঁর ভাই তুফান সরকারের নানা অপকর্মের বিষয়টি সামনে আসে। মতিনকে তখন যুবলীগ থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। যদিও পরিবহন খাতের নিয়ন্ত্রণ হাতছাড়া হয়নি তাঁর। পরে তিনি বগুড়া পৌরসভার কাউন্সিলর হয়েছেন।

ওই নেতার ভাষ্য, ২০১৯ সালে চাঁদাবাজির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বিএনপি নেতা মাহবুব আলম হত্যার ঘটনা ঘটে। এতে আমিনুলের সংশ্লিষ্টতা উঠে আসার পর তাঁকে যুবলীগের পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। কিন্তু পরে বগুড়ার রাজনীতিতে তাঁর প্রভাবের কারণে বহিষ্কারাদেশ তুলে নিতে হয়। তিনিও একটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন।

আমিনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, রাজনৈতিক বিরোধিতার কারণেই তাঁকে মাহবুব খুনের মামলায় আসামি করা হয়েছে।

অবশ্য মামলাটির তদন্ত শেষে পুলিশ আমিনুল ইসলামকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দিয়েছে।

‘তাঁরা কোণঠাসা’

বগুড়া আওয়ামী লীগে দ্বন্দ্ব, দলাদলি খুনোখুনির বহু ঘটনা ঘটেছে। জেলা পুলিশ, স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও জেলার রাজনীতিসংশ্লিষ্ট মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জেলায় গত ১৫ বছরে আওয়ামী লীগ এবং দলের সহযোগী ও ভাতৃপ্রতিম সংগঠনের দলীয় কোন্দল ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে খুন হয়েছেন ৫১ জন।

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) বগুড়ার সাবেক সভাপতি বজলুল করিম বাহার প্রথম আলোকে বলেন, ‘আগে দেখতাম রাজনীতিবিদেরা জনগণের মধ্যে থাকেন, সঙ্গে থাকেন। সংস্কৃতি অঙ্গনেও তাঁদের পদচারণ ছিল। এখন দেখা যাচ্ছে রাজনীতিতে বিত্তশালী, পেশিশক্তিধারী, চাঁদাবাজির নিয়ন্ত্রক, ভূমিদস্যু, দখলবাজদের দাপট বেশি। ভালো মানুষেরা এখনো আছেন, তবে তাঁরা কোণঠাসা।’


এই বিভাগের আরও খবর