শিরোনাম
আন্দোলনকারীদের দেশে থাকার অধিকার নেই: জাফর ইকবাল স্ত্রীর দাবি নিয়ে স্বামীর বাড়িতে অনশন আগামীকাল সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা শাবি ছাত্রলীগের কক্ষ থেকে পিস্তল ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়ছে ২৭ শতাংশ, আগস্ট থেকে কার্যকর রাবি প্রশাসনকে সময় বেধে দিলেন আন্দোলনকারীরা রংপুর পার্ক মোড়ের নাম ‌‘শহীদ আবু সাঈদ চত্বর’ দিলেন শিক্ষার্থীরা কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীদের আন্দোলন, ৩ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল শুরু নওগাঁয় কোঠা সংস্কার মিছিল ছাত্রলীগের বাঁধায় পন্ড, উভয় পক্ষের বাহাস জামালপুরে ট্রেন ও সড়ক অবরোধ কফিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার শপথ শিক্ষার্থীদের কোটা সংস্কার : সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী মানিকগঞ্জের গড়পাড়া ইমাম বাড়িতে পবিত্র আশুরার শোক মিছিল মানিকগঞ্জের গড়পাড়া ইমাম বাড়িতে পবিত্র আশুরার শোক মিছিল বিশ্ব গণমাধ্যমে কোটা আন্দোলনে নিহতের খবর পাসপোর্টের রোকনের ঘরে আলাদিনের চেরাগ নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য : রোহিঙ্গা পাসপোর্টও হয় কোটা সংস্কার আন্দোলনে সমর্থন জানালেন জি এম কাদের পাসপোর্টের রোকনের ঘরে আলাদিনের চেরাগ নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে লাগামহীন ঘুষ বাণিজ্য : রোহিঙ্গা পাসপোর্টও হয়
মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৭:৩৪ পূর্বাহ্ন

নবীনগরে সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে শিশুর জিহ্বা-ঠোঁট কেটে দেওয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপলোড সময় : মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০২৪
নবীনগরে সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে শিশুর জিহ্বা-ঠোঁট কেটে দেওয়ার অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে এক শিশুর জিহ্বা-ঠোঁট কেটে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রতিবেশী এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গতকাল রোববার বিকেলে অভিযুক্ত প্রতিবেশী কাউসার মিয়াকে জেলা শহরের আমিনপুর থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আহত শিশুর নাম সাইম হোসেন (১০)। সে উপজেলার নাটঘর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের মালেক মিয়ার ছেলে। শিশুটি বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। কেটে যাওয়ায় তার জিহ্বা ও ঠোঁটে ১০টি সেলাই দেওয়া হয়েছে বলে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন। এ ঘটনায় চারজনকে আসামি করে মামলা করেছেন শিশুটির চাচা।

আহত শিশুর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, এক বছর ধরে বাড়ির জায়গার সীমানা নিয়ে সাইমের বাবা মালেক মিয়ার সঙ্গে পাশের বাড়ির কাউসার মিয়ার বিরোধ চলছিল। গত শুক্রবার সকালে কাউসার মিয়া বিরোধপূর্ণ জায়গার সীমানাখুঁটি তুলে আরেক জায়গায় বসিয়ে দেন। ঘটনাটি মালেক মিয়ার ছেলে সাইম দেখে ফেলে বাড়িতে গিয়ে পরিবারের কাছে জানায়। এর কিছুক্ষণ পর সাইম বাড়ি থেকে বের হলে তার ওপর হামলা করে কাউসার ও তাঁর লোকজন। একপর্যায়ে তাঁরা শিশুটির ঠোঁট ও জিহ্বায় ছুরিকাঘাত করেন। পরিবারের লোকজন সাইমকে উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক রতন কুমার ঢালী বলেন, শিশুটি জিহ্বা ও ঠোঁটে আঘাত পেয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার জিহ্বায় সাতটি ও ঠোঁটে তিনটি সেলাই দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে তার অবস্থা উন্নতির দিকে।

আহত শিশুর মা পারভীন বেগম বলেন, ‘আমার ছেলের জিহ্বা ও ঠোঁট নৃশংসভাবে কেটে দেওয়া হয়েছে। এখন আমার ছেলে হাসপাতালে কাতরাচ্ছে। তাকে এখনো কিছু খাওয়াতে পারছি না। এ ধরনের বর্বরতা মেনে নেওয়া যায় না। আমি ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করছি।’

পুলিশ সুপার মো. শাখাওয়াত হোসেন বলেন, দুই প্রতিবেশীর মধ্যে জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে উভয় পক্ষের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। সে সময় শিশু সাইম আঘাতপ্রাপ্ত হয় এবং জিহ্বার একটি অংশ কেটে যায় বলে হাসপাতাল সূত্রে জানতে পেরেছে পুলিশ। গতকাল বিকেলে অভিযান চালিয়ে জেলা শহরের আমিনপুর থেকে ঘটনার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত মূল অভিযুক্ত কাউসারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।


এই বিভাগের আরও খবর